সিঙ্গাপুরে ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন দুই বাংলাদেশি

জিসাদ ইকবাল, বিডিপ্রেস এজেন্সি, ঢাকা: সিঙ্গাপুরে সর্বোচ্চ সম্মানিত পুরস্কার ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্’ পেয়েছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত সিঙ্গাপুরের নাগরিক কবির হোসেন ও ওয়ার্ক পাশ হোল্ডার ওমর ফারুকী শিপন।

 

শুক্রবার(১৬ অক্টোবর) বিকেলে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভবন ইস্তানার বলরুমে সিঙ্গাপুরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে প্রেসিডেন্ট হালিমাহ ইয়াকুবের হাত থেকে অ্যাওয়ার্ডটি গ্রহণ করেন তারা। তিন ক্যাটগরির মধ্যে ‘পিপল অব গুড’ ক্যাটাগরিতে তারা এ অ্যাওয়ার্ডটি পান।

যে কারণে ওমর ফারুকী শিপন প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন

সিঙ্গাপুরের প্রেসিডেন্টে হালিমাহ ইয়াকুবের হাত থেকে ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ গ্রহণ করছেন ওমর ফারুকী শিপন।

সিঙ্গাপুরে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর প্রবাসী বাংলাদেশীরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন গুজব ছড়াতে থাকে। ঠিক সেই সময় এগিয়ে আসেন ওমর ফারুকী শিপন। তিনি সিঙ্গাপুরের জনশক্তি মন্ত্রনালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য পুত্রিকার সংবাদগুলো বাংলায় প্রকাশ করতে  থাকে৷

বাংলাদেশ হাইকমিশন সিঙ্গাপুর, সিঙ্গাপুর পুলিশ, জনশক্তি মন্ত্রনালয় তাকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহায়তা করতো যা তিনি প্রবাসী বাংলাদেশী ভাইদের উদ্দেশ্যে ভিডিও আকারে ফেসবুক পেইজে পোস্ট করেন৷

এসব সমস্যা সমাধানে সিঙ্গাপুর বাংলাদেশ হাইকমিশন, বিভিন্ন এনজিও ও জনশক্তি মন্ত্রনালয়ের সহায়তা নিতেন।

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানায় জন্মগ্রহণ করেন ওমর ফারুকী শিপন। ছয় ভাই বোনের মধ্যে তিনি চতুর্থ । বর্তমানে তিনি স্বপরিবারে নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানায় বসবাস করছেন৷

নারায়নগঞ্জের তোলারাম কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রী সম্পূর্ণ করে ২০১০ সালে তিনি সিঙ্গাপুরে পাড়ি জমান৷

যে কারণে কবির হোসেন প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন

সিঙ্গাপুরের প্রেসিডেন্টে হালিমাহ ইয়াকুবের হাত থেকে ‘প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড’গ্রহণ করছেন কবির হোসেন।

অন্যদিকে বিশ্বব্যাপীর করোনা ভাইরাসের মহামারির সময় নিজের অর্থায়নে ও নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থায় স্ত্রী নূরিয়া বেগমকে নিয়ে সিঙ্গাপুরে লকডাউনে আটকে পড়া অভিবাসী শ্রমিকদের মাঝে বিনামূল্যে খাদ্য ও নিত্য পণ্যসামগ্রী বিতরণ করে আলোচনায় আসেন কবির হোসেন। এসময় রমযান মাসে বিভিন্ন শ্রমিক ডরমিটরিতে ইফতার সামগ্রী বিরতণ করেন। তার এই মহৎ উদ্যোগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়।

এমন দুর্যোগময় সময়ে অভিবাসী শ্রমিকদের বিভিন্ন সমস্যা ও দুর্ভোগ লাগবের কথা চিন্তা করে BCS.SG.WAY নামে অ্যাপস চালু করে। এতে করে সিঙ্গাপুরে বিভিন্ন প্রান্তে শ্রমিকরা অ্যাপস ব্যবহার করে নিত্য পণ্যসামগ্রী অর্ডার করে ন্যায্যমূল্যে ফ্রি ডেলিভারিতে সহজেই ঘরে বসে তা সংগ্রহ করতে পারছেন। এতে শ্রমিকদের অর্থ সাশ্রয় ও সময় অপচয় অনেক কমে যায়।

সিঙ্গাপুরে প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার বাংলাদেশী শ্রমিক কাজ করছেন। বিশেষ করে এই অ্যাপস ব্যবহার করে বাংলাদেশী অভিবাসীরা খুব সহজে অনলাইনে পাসপোর্টের আবেদন, নবায়ন করতে পারছেন কোনপ্রকার ঝামেলা দুর্ভোগ ছাড়াই । বেকার, অভাব ও বিপদগ্রস্ত শ্রমিক অ্যাপসের মাধ্যমে সাহায্য আবেদন করতে পারেন। এছাড়াও আরো কিছু সুবিধাজনক সার্ভিস যুক্ত রয়েছে।

কবির হোসেন এমন ক্রিয়েটিভি অ্যাপস তৈরি করে অভিবাসী শ্রমিকদের জীবনযাত্রাকে সহজ সহায়ক করে তোলা, করোনার দুর্যোগ সময়ে শ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানো ও তরুণ সফল উদ্যোক্তা হিসেবে সিঙ্গাপুর সরকারের নজরে আসলে প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড দেয়ার জন্য তাকে মনোনীত করা হয়। প্রতিবছরের মত সিঙ্গাপুরে বিভিন্ন বিষয়ে অবদান রাখার জন্য দুইশত ব্যক্তির মধ্যে ৪৫ জনের শর্টলিস্টে তার নাম আসে। আয়োজকদের পক্ষ থেকে তাকে অ্যাওয়ার্ডের কথা নিশ্চিত করেছিলেন।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/জেডআই/টিআর

আরও পড়ুন...