সাইবার হামলার ঝুঁকিতে সাংবাদিকসহ ৫০ হাজার বিশিষ্টজন

বিডিপ্রেস এজেন্সি ডেস্ক : সারা বিশ্বে ৫০ হাজার মানুষের স্যোশাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টের ওপর নজর রেখেছিল হ্যাকাররা। আর এর সাথে যুক্ত ভারত-ইসরায়েলসহ বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা প্রতিষ্ঠান- বলে জানিয়েছে ফেসবুকের মূল প্রতিষ্ঠান মেটা। খবর এএফপির।

মেটা জানিয়েছে, সারা বিশ্বের প্রায় ১০০ দেশের অধিকারকর্মী, সাংবাদিক ও ভিন্নমতাবলম্বী অ্যাকটিভিস্টদের ওপর নজরদারি করেছে প্রতিষ্ঠানগুলো। তাদের সব স্যোশাল মিডিয়া ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রাম থেকে প্রায় দেড় হাজার পেজ ও অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এসব পেজ ব্যবহার করেই মূলত তথ্য হাতিয়ে নেয়া হতো। আর সাতটি প্রতিষ্ঠান এসব অ্যাকাউন্ট ও পেজ ব্যবহার করত বলে নিশ্চিত করেছে সিএনএন ও রয়টার্স।

এ কারণে হ্যাকিং প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর নজরদারি বাড়িয়েছে মেটা। সম্প্রতি নজরদারির অংশ হিসেবে ইসরায়েলের পেগাসাস নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এনএসও গ্রুপের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে মার্কিন সরকার। এদিকে এনএসওর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে মেটা।

এছাড়া যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরূদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে সেগুলো হলো, বেলট্রক্স (ভারত), ব্ল্যাক কিউব (ইসরায়েল), এ প্রতিষ্ঠানটিকে ব্যবহার করেছিলেন ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের ঘটনার দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হলিউডের প্রভাবশালী প্রযোজক হার্ভি ওয়াইনস্টেইন। ইসরায়েলের কবওয়েবস টেকনোলজিস, কগনাইট, ব্লু-হোয়্যাক যা সম্প্রতি সিআইয়ের অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলেছে ফেসবুক থেকে। এছাড়াও রয়েছে সাইট্রক্স (উত্তর মেসিডোনিয়া) ও চীনের আরেকটি প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টও মুছে দিয়েছে ফেসবুক।

এ প্রসঙ্গে মেটার সিকিউরিটি পলিসি বিভাগের প্রধান নাথানিয়েল গ্লেইসার বলেন, এনএসও’র মতো শুধু একটি প্রতিষ্ঠান নয়, আড়িপাতার জন্য সফটওয়্যার তৈরি করতে যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করে থাকে, সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে এসব আড়িপাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর সন্ধান কীভাবে মিলেছে সে বিষয়ে কিছু জানায়নি মেটা।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/এটটোনি

আরও পড়ুন...