সন্ধ্যার পর কালবৈশাখীর আভাস

বিডিপ্রেস এজেন্সি : করোনার বাধা কাটিয়ে দুই বছর পর ঈদ ফিরেছে স্বরূপে। তবে এই ঈদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে বাগড়া দিয়েছে বৃষ্টি। ঈদের দিন সকালেই ঈদের জামাত শেষে নেমেছে বৃষ্টি। এতে কিছুটা ভোগান্তি হলেও স্বস্তি মিলেছে।

বৃষ্টিতে গরম থেকে স্বস্তি পেয়েছে দেশের মানুষ। অবশ্য ঈদের দিন বৃষ্টি হতে পারে এমন পূর্বাভাগ আগেই দিয়েছিল আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, ঈদের দিন দুপুর, বিকেল, সন্ধ্যায়ও দেশের বিভিন্ন জেলায় কালবৈশাখী ও বৃষ্টি হতে পারে। দিনের তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত এবং রাতের তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি পর্যন্ত কমতে পারে।

আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ জানান, রাজধানীতে এ পর্যন্ত ১৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। ঢাকায় আপাতত বৃষ্টিপাত বন্ধ থাকলেও সিলেট, ময়মনসিংহ, সিলেট, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা অঞ্চলে বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে।

তিনি জানান, সারা দেশের আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে এবং আগামীকালও বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। যশোর, কুষ্টিয়া অঞ্চলে দুপুরের পর কালবৈশাখীর সম্ভাবনা রয়েছে উল্লেখ করে এই আবহাওয়াবিদ জানান, ঢাকাসহ সারা দেশে আজ মধ্যরাতের দিকে কাল বৈশাখী হতে পারে।

এবার ঈদের প্রধান জামাত হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহে অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ৮টায়। বৃষ্টির কথা মাথায় রেখে সেভাবেই নামাজের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল। আবহাওয়া প্রতিকূল বা অন্য কোনো অনিবার্য কারণে এ জামাত অনুষ্ঠান সম্ভব না হলে ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৯টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে সকালেই ঈদের প্রধান জামাত হওয়ায় তার আর প্রয়োজন হয়নি।

ঢাকার আকাশ সকাল থেকেই মেঘলা ছিল। সকাল ৯টা ২০ মিনিটের দিকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি শুরু হয়। এতে ঈদের নামাজের জামাত শেষে মানুষ কিছুটা সমস্যার মধ্যে পড়েন। তবে অধিকাংশ স্থানে সকাল ৭টা থেকে ৯টার মধ্যে জামাত শেষ হয়ে যাওয়ায় ভোগান্তির মাত্রা বেশি ছিল না।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছিল, কালবৈশাখী মৌসুম হওয়ায় ঈদের দিন সারা দেশেই বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টিপাত হবে। রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর সকালে ঢাকায় বিক্ষিপ্তভাবে হালকা বৃষ্টি এবং বিকেলে বেশি বৃষ্টিপাত হতে পারে

অন্যদিকে আগামী দু’তিন দিন সারাদেশে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। তবে তিনদিন পর থেকে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের পরিমান হ্রাস পেতে পারে।

আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহী ও বদলগাছীতে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ৩৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে ৪১ মিলিমিটার।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/টিআই

আরও পড়ুন...