রাত পেরলেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৌর নির্বাচন

মুহাম্মদ মুহছিন আলী,বিডিপ্রেস এজেন্সি,ব্রাক্ষণবাড়িয়া : রাত পোহালে ২৮ ফেব্রুয়ারি পঞ্চম ধাপে এই প্রথম ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রদানের মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।নৌকার মিছিলে ককটেল বিস্ফোরণ, হামলা, মামলা ধরপাকড় সহ জনজীবনে নির্বাচনী অস্থিরতা থেকে স্বস্তি প্রত্যাশী পৌরবাসী।

আওয়ামী লীগ বিএনপি’র আলোচিত দুই প্রতিদ্বন্দ্বি ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী), ওয়ার্কার্স পার্টি সমর্থিত একজন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর একজন প্রার্থীসহ ৬ জন মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে লড়াই করছে। সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে ৫৬ জন। সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৫ জন। ১২টি ওয়ার্ডে ১ লক্ষ ২০ হাজার ৫০৪ জন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৯ হাজার ৫৬২ ও নারী ভোটার ৬০ হাজার ৯৪২ জন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র মিসেস নায়ার কবির। ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক খোকন। হাতুড়ি প্রতীকে ওয়ার্কার্স পার্টি মনোনীত প্রার্থী কমরেড নজরুল ইসলাম। মোবাইল ফোন প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ( আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী) হাজী মাহমুদুল হক ভূঁইয়া। ডাবগাছ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আব্দুল কারীম এবং হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোঃ আব্দুল মালেক ।

পৌর নির্বাচনে দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে বেকায়দায় আছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মিসেস নায়ার কবির। বিদ্রোহী প্রার্থী হাজী মাহমুদুল হক ভূঁইয়া র সভা সমাবেশে প্রচারণা ছিল চোখে পড়ার মত। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হিসেবে পৌর এলাকায় তার আছে ব্যাপক সমর্থন। যে কারণে বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে আওয়ামী লীগ। এরই ফাঁকে আওয়ামী লীগের এই বিরোধকে কাজে লাগিয়ে পৌর নির্বাচনে কৌশলে বিজয় লাভের প্রত্যাশী জেলা বিএনপি র সাধারণ সম্পাদক মেয়র প্রার্থী জহিরুল হক খোকন।

আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীকে ভোট প্রদান করে বিজয়ী করার জন্য জেলা কমিটির পক্ষ থেকে বিভিন্ন জনসভায় বক্তব্যকালে বলা হয়েছে, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের বিকল্প নেই। জনগনের প্রতি আহ্বান পুনরায় নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে।

গত ৫ বছর মিসেস নায়ার কবির মেয়র থাকা অবস্থায় পৌরসভায় কোনো টেন্ডারবাজি হয়নি। শহরের ব্যস্ততম এলাকা থেকে কোরবানির পশুর হাট শহরের বাইরে সরিয়ে প্রশংসিত হয়েছে পৌরবাসীর নিকট। পৌর শহরে স্থাপন করেছেন বঙ্গবন্ধু স্কোয়ার। দলীয় রাজনীতিতে কোনো রকমের প্রভাব না দেখিয়ে আওয়ামীলীগ এর নেতাকর্মীদের নিকট হয়েছেন প্রশংসিত।

সংবাদ মাধ্যমে দেয়া বক্তব্যে মিসেস নায়ার কবির বলেছেন, আমার বিশ্বাস পৌরবাসী আমাকে পুনরায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করবেন। আমি পৌর শহরের কোন ক্ষতি করিনি। মানুষ শান্তি পছন্দ করেন। কোন সন্ত্রাসী কিংবা চাঁদাবাজ কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাসী ভোট প্রদান করবেনা।

নির্বাচনী পরিবেশের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করে সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে শঙ্কায় আছেন বিএনপির প্রার্থী জহিরুল হক খোকন। তিনি বলেন, আমার দল (বিএনপির) নেতা কর্মীদের গ্রেফতার চলছে এবং নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হলে জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হাজী মাহমুদুল হক ভূঁইয়া বলেন, আমি দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলাম কিন্তু সুকৌশলে আমাকে দলীয় মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। দলমত-নির্বিশেষে পৌরবাসী আমাকে ভোট দেয়ার জন্য অপেক্ষায় আছে। আমার বিজয় নিশ্চিত। তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের নেতারা বলছে নৌকার ভোট ওপেন হবে এবং কাউন্সিলরের ভোট গোপনে দিবে এমন বক্তব্যে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়েও সঙ্কায় আছি।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান বলেন,পৌর নির্বাচন সুষ্ঠ হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পৌর শহরে অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/এমএসআই

আরও পড়ুন...