ফেসবুক জুড়ে এমপি নাজিমুদ্দিনের আপত্তিকর ভিডিও! অবশেষে পুরো ঘটনার বর্ণনা দিলেন ভুক্তভোগী

বিডিপ্রেস এজেন্সি,গৌরীপুর,ময়মনসিংহ : সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ৭ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডের ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায় সত্তোরোর্ধ্ব এক ব্যক্তির সাথে জনৈক নারীর শারীরিক মেলামেশার দৃশ্য। ভাইরাল হওয়া ভিডিওর ক্যাপশনে অনেকেই দাবি করছেন এটা ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. নাজিমুদ্দিন আহমদের। অনেকে এমনও দাবি করছেন যে এমপি নাজিমুদ্দিনের কন্ঠ ও চেহারার সাথেও মিল পাওয়া যাছে ভিডিওর পুরুষ ব্যক্তির।তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করা ভিডিওটি বেশিরভাগই বিভিন্ন পেইজ ও ভুয়া আইডি থেকে ছড়ানো হয়েছে। অনেকেই ভিডিওর ক্যাপশনে সাংসদ নাজিমুদ্দিনকে সরাসরি দায়ী হিসাবে উল্লেখ্য করে দিচ্ছে। ভিডিওটি হাতে আসার দিন একটি অভিযোগ পত্রও পাওয়া যায়। সেখানে গৌরিপুর থানার ওসি বরাবর দায়ের করা অভিযোগের অভিযোগকারী হিসাবে নাম উল্লেখ্য করা হয় উপজেলার তৌহিদা আক্তার নামের এক নারীর। কিন্তু অভিযোগপত্রে কোনো তারিখ ও সংশ্লিষ্ট থানার কারও সীল সাক্ষর পাওয়া যায়নি।

অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়, চাকরীর প্রলোভন দেখিয়ে ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি সন্ধ্যায় ভুক্তভোগীকে ময়মনসিংহ শহরের গুলপুকুরপাড় এলাকায় অবস্থিত জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কার্যালয়ের দুতলায় এমপি নাজিমুদ্দিন আহমেদ নিয়ে যায়। সেখানে কোমল পানীয়ের সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে তাকে পান করিয়ে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করেন নাজিমুদ্দিন আহমেদ।অভিযোগে আরও উল্লেখ্য করা হয়, তার সাথে ঘটা এই ঘটনার ভিডিও কৌশলে ধারণ করে নাজিমুদ্দিন আহমেদ বারবার তাকে যৌন মিলনে বাধ্য করে। পাশাপাশি এই ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে বলা হয় ভুক্তভোগী নারী ও তার পরিবারের লোকদেরকে গৌরীপুর উপজেলা থেকে বের করে দিবেন।অভিযোগে থেকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও সম্পর্কে জানা যায়, এই ভিডিও ভুক্তভোগী নারী কৌশলে ধারণ করেছিলেন।

ভিডিওটিতে দেখা যায় অর্ধনগ্নাবস্থায় এক নারী কাতর কন্ঠে বলছেন, ‘আমার কাজটা একটু করে দেননা’। তখন ক্যামেরার আড়ালে থাকা ব্যাক্তিটা বলছেন ‘দেব দেব’। এর পরে আবারও ওই নারী জানান, ‘ওই আঙ্কেলকে একটা ফোন করে দিলে আপনে…।’ তখনও ওই ব্যক্তি আশ্বাস দিয়ে বলেন ‘দিব’। পরে ক্যামেরার সামনে বিভিন্নভাবে আপত্তিকর অবস্থায় দেখা যায় ওই নারী ও পুরুষকে।অভিযোগপত্রটি সম্পর্কে জানতে সেখানে উল্লেখিত ভুক্তভোগীর ফোন নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। উল্লেখিত ঠিকানায়ও তাকে খোঁজে পাওয়া যায়নি।

অভিযোগপ্ত্রটি সম্পর্কে গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উদ্দিন বলেন, এরকম কোনো অভিযোগ আমাদের হাতে আসেনি। আপনারা যেমন ফেসবুকে দেখছেন আমরাও তাই দেখেছি। আর উল্লেখিত অভিযোগ পত্রে লেখা আছে ঘটনাটি ২০১৯ সালে ময়মনসিংহ কোতোয়ালী থানা এলাকায় ঘটেছিল। তাই এ বিষয়ে আমাদের কোনো এখতিয়ার নেই।এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ফিরোজ তালুকদার জানান, আমরা এরকম কোনো অভিযোগ এখন পর্যন্ত পাইনি। ফেসবুকে আমরাও দেখেছি।ভাইরাল হওয়া ভিডিও এবং ফেসবুকে নানান মন্তব্য সম্পর্কে জানতে ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. নাজিমুদ্দিন আহমদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/আইজেএস

আরও পড়ুন...