চাঁদাবাজ চক্রের হাতে জিম্মি কাহালু থানার নরহাট্র ইউনিয়নবাসী

মারুফ সরকার,বিডিপ্রেস এজেন্সি :  বগুড়ায় গত চার বছর থেকে চাঁদাবাজ চক্রের হাতে জিম্মি কাহালু থানার নরহাট্র ইউনিয়ন বাসী।  বগুড়ার কাহালুতে দূর্বৃত্তরা চাঁদা দাবি করে চাঁদার টাকা না পাওয়ায় শতাধিক পুকুরে বিষ প্রয়োগে লক্ষ লক্ষ টাকা ক্ষতিগ্রস্ত শিকার হন বিভিন্ন মৎস্য- চাষিরা।  এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় দীর্ঘ চার বছর ধরে বগুড়া জেলার কাহালু থানার নারহাট্র ইউনিয়নে  একটা চাঁদাবাজ চক্র বিভিন্নভাবে চাঁদা দাবি করে আসছে, তাদের কথা মতো  চাঁদার টাকা না দিলে পুকুরে বিষ মারা থেকে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি করে আসছে এলাকাবাসীর।

যেমন, বিদ্যুৎ মিটার, টেনাস মিটার চুরি করা থেকে পুকুরে বিষ মারার, এরকম বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভয়-ভীতি দেখিয়ে এলাকাবাসীর কাছে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি। সম্প্রতি গত বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) রাতে উপজেলার নারহট্ট ভেঁপড়া এলাকা এ ঘটনা ঘটেছে। মৎস্য চাষি এ ব্যাপারে কাহালু থানায় অভিযোগ করেছেন।

মৎস্য চাষি আল আমিন জানান, প্রায় চার মাস আগে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা মোবাইলে ফোন দিয়ে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। শুক্রবার (১৭ জুলাই) সকালে তার হ্যাচারির পুকুরে থাকা পাবদা মাছ মরে ভেসে উঠে। চাঁদা না দেওয়ায় দুর্বৃত্তরা তার পুকুরে বিষ দিয়েছে বলে তার ধারণা। এতে তার অন্তত ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

তিনি আরও জানান, শুক্রবার দুর্বৃত্তরা ফোন করে আবারও চাঁদা চেয়েছে। না দিলে অন্য পুকুরে বিষ দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। এছাড়া আরো জানান ,ইউনিয়ন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হারুন আর রশিদ ,মান্নান মিঠুসহ অনেকে।  তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন ,আমরা কি এমন দোষ করেছি যার কারণে আমাদের এমন নির্যাতন সহ্য করতে হয়। আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি খুব তাড়াতাড়ি আমাদের এই সমস্যা সমাধানের জন্য।

কাহালু থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ নিধনের মৌখিক অভিযোগ পেয়েছেন। এমন আরও কয়েকটি অভিযোগ তার কাছে এসেছে।

এ ব্যাপারে গোয়েন্দা ও থানা পুলিশ হুমকিদাতাদের শনাক্ত করার চেষ্টা করছেন।

এই সমস্যা সমাধানে সকালের আন্তরিক সহযোগিতা দরকার বলে মনে করেন  এলাকার সচেতনমহল।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/টিআই

আরও পড়ুন...