ক্যাটরিনার কেশ থেকে শরীরের চুপকথা

বিডিপ্রেস এজেন্সি : বলিউড অভিনেত্রী ক্যাটরিনা কাইফের রূপে আবিষ্ট কেবল তরুণেরাই নন, তরুণীরাও। তাঁর রেশমের মতো কালো কেশ, সতেজ ত্বক, হিলহিলে শরীরের চুপকথা জানতে কমবেশি সবাই আগ্রহী। কিন্তু ব্যক্তিগত জীবনে ক্যাটরিনা সাদামাটা থাকতেই ভালোবাসেন। তবে নিজেকে ফিট রাখতে কিছু কিছু খাবার তাঁর ডায়েটে নৈব নৈব চ।

এবার নিশ্চয় জানতে ইচ্ছা করছে যে এই বিটাউন রূপসীর অপার সৌন্দর্যের চুপকথা। প্রথমে আসা যাক ক্যাটরিনার পিঠখোলা কালো একঢাল চুলের প্রসঙ্গে। ক্যাটরিনা নিজের চুল নিয়ে সবচেয়ে বেশি সচেতন থাকেন। চুলের ব্যাপারে তিনি অত্যন্ত খুঁতখুঁতে। চুলে ঘন ঘন রং করা একদম পছন্দ করেন না। এমনকি চুল কাটাতেও তাঁর প্রবল আপত্তি। তাই ছোট চুলে সচরাচর দেখা যায় না ক্যাটরিনাকে। পরিচর্যাও তিনি করেন নিজের হাতে। অবিন্যস্ত চুল একেবারেই পছন্দ নয় ক্যাটরিনার। এ প্রসঙ্গে বলিউডের এই নায়িকা বলেছেন, ‘আমি রোজ নিজের চুল ভালোভাবে ধুয়ে ফেলি। তারপর ভালো করে শুকিয়ে নিই। আমার চুল খুব সহজে বাগে আনা যায়।

যাঁদের লম্বা চুল, তাঁরা সাধারণত রোজ চুলে জল লাগান না। তাঁদের ধারণা, রোজ চুল পরিষ্কার করলে তা চুলের পক্ষে ক্ষতিকর। আমি মনে করি, শরীরের মতো চুলকেও নিয়মিত ধুতে হয়। আমার চুলের এটা সব থেকে বড় রহস্য।

গ্ল্যামার দুনিয়ার অন্যতম ফ্যাশন আইকন ক্যাটরিনা কাইফ। তাঁর ফ্যাশন স্টেটমেন্ট হামেশাই বিটাউনে ঝড় তোলে। এ ব্যাপারেও তাঁর ব্যতিক্রমী চিন্তাভাবনা। তিনি অনুরাগীদের উদ্দেশে বলেছেন, আপনার যা মন চায়, তা–ই পরবেন; তবে অবশ্যই আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে। আমি আমার মনের কথা শুনে পোশাক নির্বাচন করি। অন্যের কথা শুনে পোশাক নির্বাচন করবেন না। অন্যরা কী বলবে, এ ব্যাপারে একদম ভাববেন না।

বলিউডের ফিট নায়িকাদের একজন ক্যাটরিনা। তাই পরিচালক আলী আব্বাস জাফর তাঁকে নিয়ে এক ‘সুপারওম্যান’ভিত্তিক ছবি নির্মাণ করতে চলেছেন। ক্যাটরিনা মনে করেন, নিজের শরীরকে ফিট এবং সুস্থ রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা জরুরি। তাঁর মতে, শরীরচর্চার মাধ্যমেই শারীরিক গঠন একদম ঠিকঠাক হয়। তাই লকডাউনের মধ্যেও তিনি নিজের ফ্ল্যাটের ছাদে প্রচুর ঘাম ঝরিয়েছেন।

তবে শরীরচর্চার পাশাপাশি সুষম খাবার খুব জরুরি বলে মনে করেন ক্যাটরিনা। তাই তিনি অত্যন্ত কড়া ডায়েটের মধ্যে থাকেন। ক্যাটরিনা তাঁর অনুরাগীদের খাদ্যতালিকা থেকে কিছু কিছু খাবার একদম ছেঁটে ফেলার উপদেশ দিয়েছেন। এই বলিউড অভিনেত্রী এ প্রসঙ্গে বলেছেন, আমাদের শরীরে রোজ কোন কোন খাবার যাচ্ছে, তা নজর রাখা জরুরি। আর কিছু কিছু খাবার থেকে নিজেকে একদম দূরে রাখতে হবে। তাই চিনি, দুগ্ধজাত সামগ্রী, গ্লুটেনকে ডায়েট থেকে বিদায় করে দিন। তার মানে এই নয় যে নিজের প্রিয় খাবারকে পুরোপুরি বাদ দিয়ে দেবেন। এর বিকল্প খুঁজে বের করুন, যা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/আই

আরও পড়ুন...