করোনার মাঝেও আদালতে হাজির হতে হচ্ছে মির্জা আব্বাস দম্পতিকে

বিডিপ্রেস এজেন্সি : চলতি বছর মার্চে করোনা দেশে ধরাপরার পর থেকে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা তিন লাখেরও বেশি। মৃত্যুর সংখ্যা সারে পাচ হাজার ছাড়িয়েছে।বিশেষজ্ঞদের মতে বাংলাদেশ সহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে আসছে নভেম্বর থেকে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কভিডের ভয়াবহতা আরও বাড়বে বলে ধারনা করা হচ্ছে।পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডাব্লিউএইচও (WHO) জনসমাগম এড়িয়ে চলার বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছে। কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার আহবান জানিয়ে। যুক্তরাষ্ট্র আগামী নভেম্বর থেকে আবার নতুন করে লকডাউনের কথা চিন্তা করছে।

সেইসময় আমাদের দেশের আদালত গুলোতে বিভিন্ন মামলায় আসামিদের স্বশরীরে হাজির হতে বাধ্য করা হচ্ছে। দেশের আদালতগুলো সম্পর্কে যাদের নুন্যতম ধারনাও রয়েছে তারা সবাই একমত হবেন যে, আমাদের আদালতগুলোতে কোনভাবেই সামাজিক দূরত্ব মেনেচলা সম্ভব নয়। জনসমাগমের কারনে যথেষ্ট পরিমাণ স্বাস্থ্যঝুকি রয়েছে। কাজেই আসন্ন করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ভার্চুয়াল আদালতের শুনানির পরামর্শ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।উল্লেখ্য আজ ২০ অক্টোবর মঙ্গলবার বিএনপির স্থায়ীকমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও তার সহধর্মিণী জাতীয়তাবাদী মহিলাদলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসকে স্বশরীরে আদালতে হাজির হতে দেখা গেছে।

যেখানে স্কুল কলেজ সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান করোনার জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে, সেখানে আদালতের মতো একটি জায়গায় শতশত মানুষের জনসমাগম দেশে করোনা আক্রান্তের সম্ভাবনাকে আরও বাড়িয়ে তুলবে।উল্লেখ্য গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৫ হাজার ৬৬০ জনে। এ ছাড়া নতুন করে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে আরও ১ হাজার ২৭৪ জনের দেহে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্ত হলো ৩ লাখ ৮৮ হাজার ৫৬৯ জন করোনা রোগী।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/টিএস

আরও পড়ুন...