‘করোনাভাইরাস পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে’

 

বিডিপ্রেস এজেন্সি ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মহামারির আরও অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ চিকিৎসা উপদেষ্টা এবং মহামারি ও সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউসি। ভারতে প্রথম শনাক্ত ভাইরাসের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন তিনি।

স্থানীয় সময় রোববার (১ আগস্ট) এবিসি টেলিভিশনের ‘দিস উইক’ অনুষ্ঠানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শীর্ষ এই চিকিৎসা উপদেষ্টা বলেন, করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে চলেছে। তবে এজন্য কোভিড-১৯ টিকা না নেওয়া মানুষকেই দোষারোপ করেছেন তিনি। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে যুক্তরাষ্ট্রে ভাইরাসে নতুন করে সংক্রমণের সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে করে সুরক্ষিত থাকতে অনেকেই টিকা নেওয়ার কথা ভাবছেন। তবে কার্যকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে সন্দেহের কারণে দেশটির লাখ লাখ মানুষ এখনও টিকা নিতে ইচ্ছুক নন।

অবশ্য করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে মার্কিন নাগরিকদের টিকা নিতে বরাবরই উদ্বুদ্ধ করে আসছেন ড. অ্যান্থনি ফাউসি। তিনি বলছেন, ‘টিকা নিয়ে আপনি নিজেকে গুরুতর অসুস্থ হওয়া এবং মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করছেন। আর যারা টিকা নিচ্ছে না, তারা কার্যত ভাইরাসের বংশ বিস্তারে সাহায্য করছে।’

রোববার তিনি বলেন, ‘আপনি যদি সংক্রমণের সংখ্যার দিকে লক্ষ্য করেন, তাহলে বুঝতে পারবেন যে- মহামারি পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। গত সাতদিনের গড় সংক্রমণ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।’

তিনি বলছেন, প্রায় ১০ কোটি মানুষ টিকা নেওয়ার যোগ্য হলেও এখনও পর্যন্ত করোনা টিকা গ্রহণ করেননি। ফাউসির ভাষায়, ‘আমরা লকডাউনের কথা ভাবছি না। কিন্তু সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় ভবিষ্যতে আমরা আরও কষ্ট ও দুর্দশার মধ্যে পড়তে পারি।’

তিনি আরও বলেন, আর এজন্যই আমরা বারবার টিকা নেওয়ার কথা বলছি। এই সংকট সমাধানের উপায় হচ্ছে- টিকা নিতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে দিনে ৭০ হাজার নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের রেকর্ড করছে। এই সংখ্যা গত ছয় সপ্তাহে প্রায় ৬০ হাজার করে ছিল। গত ফেব্রুয়ারির পর এটাই সর্বোচ্চ হার। ভারতে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর থেকেই দেশটিতে সংক্রমণের ঊর্ধগতি শুরু হয়েছে।

কিছু গবেষক অবশ্য ডেল্টার প্রকোপে যুক্তরাষ্ট্রের আরও বড় সংখ্যায় সংক্রমণের আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তাদের আশঙ্কা, আগস্টের শেষের দিকে ১ লাখ ৪০ হাজার থেকে ৩ লাখেরও বেশি মানুষের মধ্যে ভাইরাসের এই ধরনটি যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, যারা ইতোমধ্যেই টিকা নিয়েছেন, তাদের মাধ্যমেও এই ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পরতে পারে। মার্কিন সকারের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) গত সপ্তাহে একটি নতুন নির্দেশনা জারি করে। সিডিসি বলেছে, দেশের কোনো কোনো অংশে সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার ফলে ওইসব স্থানে যারা ইতোমধ্যে টিকা নিয়েছেন, তাদের আবারও মাস্ক পরা উচিত।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের ১০০ মার্কিন ডলার করে প্রদান করতে সম্প্রতি দেশের অঙ্গরাজ্যগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ডেল্টা ধরনের কারণে দেশটিতে ভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় টিকাদান কর্মসূচি জোরদার করতে এবং টিকা নিতে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে এই নির্দেশ দেন বাইডেন।

বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত প্রাণঘাতী এই রোগ আক্রান্ত ও মৃতের হিসেবে বিশ্বের দেশসমূহের মধ্যে শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, মহামারি শুরুর পর থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩ কোটি ৫৭ লাখ ৬৮ হাজার ৯২৪ জন করোনায় আক্রান্ত এবং ৬ লাখ ২৯ হাজার ৩৮০ জন মারা গেছেন। সূত্র-আলজাজিরা।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/টিআই

আরও পড়ুন...