এই করোনা মহামারিতেও থেমে নেই ডেঙ্গুর হানা

বিডিপ্রেস এজেন্সি ডেস্ক: করোনা মহামারির মধ্যেও থেমে নেই ডেঙ্গুর হানা। গত এক মাসে (অক্টোবরে) ১৫ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে। এর মধ্যে ১৩ জনই শনাক্ত হয়েছেন নগরীর আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে। এছাড়া চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ১ জন এবং নগরীর বাইরে হাটহাজারী উপজেলায় আরো ১ জন রোগী শনাক্তের তথ্য পাওয়া গেছে। মহানগর ও উপজেলা মিলিয়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত ১৪ জনের তথ্য নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।
ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়া রোগ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত সংরক্ষণের পাশাপাশি এ সংক্রান্ত দায়িত্ব পালন করেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. নুরুল হায়দার। শনাক্ত ১৪ জনের মধ্যে ১৩ জনই আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে পরীক্ষায় ধরা পড়ে জানিয়ে তিনি বলেন, আক্রান্তরা সেখানে চিকিৎসাও নেন। এর বাইরে হাটহাজারী উপজেলায় আরো ১ জন রোগী শনাক্ত হয় বলে নিশ্চিত করেন তিনি। এদিকে, ২৯ অক্টোবর মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি হওয়া এক রোগীর ডেঙ্গু ধরা পড়ে বলে নিশ্চিত করেছেন চমেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলাম। এছাড়া গত মাসে ডেঙ্গু শনাক্তের আর তথ্য পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।
পাওয়া যাচ্ছে না সঠিক চিত্র : করোনার কারণে এবার ডেঙ্গু আক্রান্ত ও শনাক্তের সঠিক চিত্র আসছে না বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিভাগ সংশ্লিষ্টরা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে গেলে মহানগর ও উপজেলার সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোকে ডেঙ্গু শনাক্তের বিষয়ে নিয়মিত রিপোর্টিং করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। নির্দেশনার প্রেক্ষিতে সিভিল সার্জন কার্যালয়ে নিয়মিত হালনাগাদ রিপোর্ট সরবরাহ করত স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো। এতে করে ডেঙ্গু আক্রান্ত ও শনাক্তের তথ্য প্রতিনিয়ত হালনাগাদ পাওয়া যেত। কিন্তু এবার করোনা সংক্রমণের কারণে অন্যান্য সব কার্যক্রম চলছে অনেকটা ঢিমেতালে। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোও করোনা রোগীর চিকিৎসাসেবা নিয়ে ব্যস্ত। যার কারণে হাতে গোনা কয়েকটি হাসপাতাল ডেঙ্গু সংক্রান্ত হালনাগাদ রিপোর্ট দিলেও বেশিরভাগ হাসপাতাল নিয়মিত রিপোর্টিং করছে না। এর ফলে ডেঙ্গু আক্রান্ত ও শনাক্তের বিষয়ে সঠিক চিত্র পাওয়া যাচ্ছে না চট্টগ্রামে। করোনাকালীন অধিকাংশ হাসপাতালের কাছ থেকে ডেঙ্গু সংক্রান্ত নিয়মিত রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. নুরুল হায়দার।
ডেঙ্গুর প্রকোপও থেমে নেই উল্লেখ করে সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যায়। এবারও মানুষ জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে ঠিকই, তবে বেশিরভাগই ডেঙ্গু পরীক্ষা করেনি বা করাচ্ছে না। অনেকে আবার কোনো পরীক্ষা না করে বাসায় বসেই চিকিৎসা নিচ্ছে। করোনার পাশাপাশি ডেঙ্গু নিয়েও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

বিডিপ্রেস এজেন্সি/মুক্তা

আরও পড়ুন...